‘নাপা’ সিরাপ থেকে সাবধান - সোনারগাঁও দর্পণ

শিরোনাম

Post Top Ad

Sunday, March 13, 2022

‘নাপা’ সিরাপ থেকে সাবধান


সোনারগাঁও দর্পণ :

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড এর তৈরি নাপা সিরাপ ব্যবহারে নিশেধাজ্ঞা দিয়েছে ওষধ প্রশাসন অধিদপ্তর। সম্প্রতি বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড উৎপাদিত নাপা সিরাপ খেয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামে একই পরিবারের দুই শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় এ নিশেধাজ্ঞা দেয়া হয়। 

এরআগে ১৩ বছর আগে রিড ফার্মাসিউটিক্যালসের তৈরি ভেজাল প্যারাসিটামল খেয়ে ২৮ শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে।

রিড ফার্মাসিউটিক্যালসের উৎপাদিত ওই প্যারাসিটামল সিরাপে চামড়া ও বস্ত্র তৈরির কারখানায় ব্যবহৃত ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান ডাই ইথাইলিন গøাইকল ব্যবহৃত হয়েছিল। ক্ষতিকর ওই ওষুধ খেয়ে কিডনি বিকল হয়ে ২৮ শিশুর মৃত্যু হয়। আশুগঞ্জের দুর্গাপুর গ্রামের দুই শিশুর মৃত্যু নাপা সিরাপ নাকি অন্য কোনো কারণে হয়েছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর এরই মধ্যে দেশের সব বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে কর্মরত কর্মকর্তাকে নিজ নিজ নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় অবস্থিত পাইকারি ও খুচরা ফার্মেসি পরিদর্শন করে নির্দিষ্ট ব্যাচের নাপা সিরাপ (প্যারাসিটামল ১২০ মি.গ্রা./৫ মি.গ্রা., ব্যাচ নম্বর ৩২১১৩১২১, উৎপাদন তারিখ ১২/২০২১, মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ ১১/২০২৩) নমুনা পরীক্ষা ও বিশ্লেষণের জন্য কেন্দ্রীয় ওষুধ পরীক্ষাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে। এছাড়া পৃথক দুটি কমিটি বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ওষুধ কারখানা সরেজমিনে পরিদর্শন করে নির্দিষ্ট ব্যাচের নাপা সিরাপ উৎপাদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ ও ঘটনাস্থল আশুগঞ্জে সরেজমিনে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের জন্য ছুটে গেছে।

ওষুধ শিল্পের সঙ্গে জড়িত বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিশু দুটির মৃত্যু কি নাপা সিরাপে হয়েছে নাকি অন্য কোনো কারণে, তা সঠিকভাবে জানতে ধারাবাহিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। 

যে দুটি শিশুর মৃত্যু হয়েছে তারা কয়েকদিন ধরে জ্বরে ভুগছিল বলে জানা গেছে। এক্ষেত্রে জ্বর ছাড়া অন্য কোনো অসুখ ছিল কি না, ওই সময় অন্য আরও কোনো ওষুধ সেবন করেছে কি না, যে নাপা সিরাপ সেবনের কথা বলা হচ্ছে সে ওষুধটি কী পরিমাণ অর্থাৎ কয় চামচ খেয়েছিল, খাওয়ার কতক্ষণ পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছিল, হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা কী চিকিৎসা দিয়েছিলেন, তখন কি শিশুদের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল ছিল, হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে যাওয়ার কতক্ষণের মধ্যে মৃত্যু হলো- তা জানা জরুরি।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আইয়ুব হোসেন জানান, নাপা সিরাপ খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যুর অভিযোগটি খতিয়ে দেখতে এরই মধ্যে কার্যক্রম শুরু করেছে অধিদপ্তর। সারাদেশ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে আনার পাশাপাশি দুজন পরিচালকের নেতৃত্বে দুটি পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

তবে, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস থেকে অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে তাদের তরফ থেকে কোন গাফিলতি করা হয়নি বলে দাবি করা হচ্ছে। 

উল্লেখ্য, গত ১০ মার্চ রাতে আশুগঞ্জ উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে ইয়াছিন খান (৭) ও মোরসালিন খান (৫) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়। (সূত্র - জাগো নিউজ২৪ডটকম)


Post Bottom Ad