সোনারগাঁও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা টিকা গ্রহণকারীর উপর নির্যাতনের অভিযোগ, ভাঙচুর ; কর্তৃপক্ষ বলছেন ভিন্ন কথা - সোনারগাঁও দর্পণ

শিরোনাম


 

Post Top Ad

Wednesday, November 10, 2021

সোনারগাঁও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা টিকা গ্রহণকারীর উপর নির্যাতনের অভিযোগ, ভাঙচুর ; কর্তৃপক্ষ বলছেন ভিন্ন কথা

সোনারগাঁও দর্পণ :

করোনার টিকা নিতে গিয়ে টিকা গ্রহণকারীদের ওপর হামলা ও শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ তুলেছেন টিকা নিতে যাওয়া সাধারণ মানুষ। এ সময় উত্তেজিত সাধারণ মানুষ হাসপাতালের পশ্চিম পাশের একটি ভবনের জানালার গøাস ভাঙচুর করেছে। টিকা নিতে যাওয়া সাধারণ মানুষের অভিযোগ, হাসপাতালের নিযুক্ত দালালরা ১০০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত টাকা নিয়ে পিছনের লোকদের আগে টিকা দিতে সহায়তা করায় এ ঘটনা ঘটেছে। অপরদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, লাইন সোঁজা করতে গেলে সাধারণ মানুষ উত্তেজিত হয়ে তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় এক হামলাকারীকে আটক করে কক্ষে আটকে রেখে পুলিশে খবর দিলে টিকা নিতে যাওয়া জনতা হাসপাতালের জানালার কাঁচ ভাঙচুর করে। ঘটনাটি ঘটেছে ১০ নভেম্বর বুধবার সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও ফুটেজ “সোনারগাঁও দর্পণ” এর হাতে আসে। ভিডিওতে দেখা যায়, সোনারগাঁও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পশ্চিম পাশের ভবন থেকে সড়ক পর্যন্ত টিকা নিতে যাওয়া শত শত মানুষ অপেক্ষমান। এ সময় সামনে থেকে হট্টগোল শুরু হয়। এ সময় একজন মহিলা কান্না কন্ঠে তার ছেলে ও স্বামীকে ভেতরে আটকে রেখে হাসপাতালের লোকজন মারধর করছে বলছেন। কারণ হিসেবে জানান, যারা হাসপাতালের দালালদের দাবিকৃত ১০০ থেকে ৩০০ টাকা দিচ্ছে তাদেরই কেবল আগে টিকা দেয়ার সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে। আর যারা ঘন্টার পর ঘন্টা রোদে পুড়ে দাড়িয়ে থাকছে তাদের টিকা দেয়ার কোন খবরই নেই। এমন অপকর্মের প্রতিবাদ করায় হাসপাতালের পক্ষে কাজ করা স্থানীয় দালাল চক্র তার ছেলেকে ঘরে আটকে রেখে মারধর করছে। এক পর্যায় আটককৃত ব্যক্তিও ক্যামেরার সামনে এসে তাকে আটকে রেখে মারধরের কথা স্বীকার করেন। এ সময় ভেতরে থাকা অন্যান্য ব্যক্তিরা ওই ব্যক্তিকে জোর করে পূণরায় ভিতরে নিয়ে গেলে সাধারণ মানুষ উত্তেজিত হয়ে ওঠে। একপর্যায় হাসপাতালের ওই কক্ষের ভিতর থেকে দুই- একজন ব্যক্তি সাধারণ জনগণকে গালাগাল করলে বাহিরে থাকা সাধারণ মানুষ আবারও উত্তেজিত হয়ে ইট-পাটকেল ছুঁড়ে ওই কক্ষের জানালার কাঁচ ভাঙচুর করে। 

এদিকে, সোনারগাঁও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিদর্শক ডা. পলাশ কুমার সাহা’র সাথে ‘সোনারগাঁও দর্পণ’ থেকে মোবাইলে রাতে (রাত ৭:৪২ মিনিট) এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি সকল অভিযোগ অস্বীকার করে ‘সোনারগাঁও দর্পণ’কে জানান, হাজার হাজার মানুষ টিকা নিতে যান, সেখানে লাইনে দাড়ানো নিয়ে কিছুটা বিশৃঙ্খলা হয়। আমাদের হাসপাতালের লোকজনসহ আমি (ডা. পলাশ কুমার সাহা) নিজে লাইন সোঁজা করতে গেলে একজন যুবক ঘুঁসি মেরে আমার (ডা. পলাশ কুমার সাহা) চোখের গ্লাস (চশমা) ভেঙে ফেলে। এ সময় আমার (ডা. পলাশ কুমার সাহা) সাথে থাকা লোকজন ওই যুবককে আটক করে একটি কক্ষে নিয়ে আটকে রাখে ঠিক। কিন্তু তাকে কোন রকম নির্যাতন করা হয়নি। আটকে রেখে আমি (ডা. পলাশ কুমার সাহা) বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, থানার ওসি, জেলা পুলিশ সুপার ও আমার (ডা. পলাশ কুমার সাহা) উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। পরে তাদের কথা মত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। 

এ বিষয়ে সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান সোনারগাঁও দর্পণ’কে জানান, খবর পেয়ে আমাদের পুলিশ সেখানে যান। হাসপাতালের পশ্চিম পাশের একটি জানালার কাঁচ ইট দিয়ে ঢিল মেরে উত্তেজিত জনতা ভেঙে ফেলেছে বলে জানতে পেরেছি। এ বিষয়ে এখনো কোন লিখিত অভিযোগ কেউ করেনি। হয়তো আগামীকাল করতে পারে। 


Post Bottom Ad