যুবলীগের ৪৯ বছর আজ - সোনারগাঁও দর্পণ

শিরোনাম


 

Post Top Ad

Thursday, November 11, 2021

যুবলীগের ৪৯ বছর আজ

সোনারগাঁও দর্পণ :

‘বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ’ দেশের প্রথম কোন রাজনৈতিক যুব সংগঠন।  দেশ স্বাধীনের পর শিক্ষক, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, আইনজীবী ও নানা  শ্রেণিপেশার মানুষের সমন্বয়ের মাধ্যমে সুষ্ঠু ও ইতিবাচক রাজনৈতিক পরিচালনার উদ্দেশ্যে বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর এই যুব সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বাঙালি জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতা ও গণতন্ত্রের মতাদর্শের ওপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠা যুবলীগ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রধান এবং সবচেয়ে শক্তিশালী সংগঠন হিসেবে এখনো তার ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছে।  

আজ ১১ নভেম্বর, দেশের প্রথম যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। দেশের বিভিন্ন স্থানে ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌর নির্বাচন সংগঠিত হওয়ায় দেশব্যাপী এবারের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীটি পালন করা না হলেও নির্বাচনহীন সকল স্থানেই যথাযথ মর্যাদায় পালন করা হচ্ছে যুবলীগের ৪৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। 

৪৯ বছরে সংগঠনটির রয়েছে অনেক আন্দোলন-সংগ্রামের গৌরবগাঁথা ইতিহাস। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে ১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর পর আত্মপ্রকাশ করলেও সংগঠনটি প্রথম জাতীয় কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে শেখ ফজলুল হক মণি চেয়ারম্যান ও অ্যাডভোকেট সৈয়দ আহম্মেদ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর ২০১৯ সালে সপ্তম জাতীয় কংগ্রেস পর্যন্ত গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কোনো কংগ্রেসই নির্দিষ্ট মেয়াদে সম্পন্ন হয়নি। অপরদিকে, ৪র্থ ও ৫ম জাতীয় কং গ্রেসের মেয়াদ ছিল প্রায় ৯ বছর করে। ১৯৯৪ সালে চতুর্থ কংগ্রেস হওয়ার পর ২০০৩ সালে হয় পঞ্চম কংগ্রেস। আর ২০১২ সালে ষষ্ঠ কংগ্রেসের মাধ্যমে সে মেয়াদ শেষ হয়। 

সবশেষ ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর যুবলীগের সপ্তম জাতীয় কংগ্রেসে  চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন প্রতিষ্ঠাকালীন চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনির ছেলে শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক হন মাঈনুল হোসেন খান নিখিল। 

যদিও মহানগর ও জেলাসহ যুবলীগের মোট ৭৮টি ইউনিটের প্রায় সবগুলোই  মেয়াদোত্তীর্ণ। বিলুপ্ত হয়েছে তিনটি জেলার কমিটি। বাকিগুলোর মধ্যে ৮টি  জেলা ইউনিট থেকে নতুন কমিটি গঠনের নিমিত্তে আগ্রহী প্রার্থীদের কাছ থেকে বায়োডাটা নেয়া হয়েছে। সেগুলো যাচাই-বাছাইও হচ্ছে। গত দুমাসে দেশের বিভিন্ন জেলায় ৪৩টি বর্ধিত সভাসহ বিভাগীয় প্রতিনিধি সভা হয়েছে। 

শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক হন মাঈনুল হোসেন খান নিখিল দায়িত্বপ্রাপ্ত হওয়ার পরপরই করোনার কারণে সাংগঠনিক তেমন কোন কাজ করতে না পারলেও সংগঠনের পক্ষ থেকে সাধারণ দুস্থ্য মানুষের পাশে ছিল সংগঠনের নেতাকর্মীরা।  (তথ্য সূত্র - যুবলীগের উইকপিডিয়া)


Post Bottom Ad